The future belongs to those who believe in the beauty of their dreams.

— Eleanor Roosevelt

ফেলে আসা গল্প🖤

-নীলা,জেগে আছো?
-হুম।
-কেমন আছো?
-বেশ।
-আমি কেমন আছি জিজ্ঞেস করবে না?
-না,জানতে ইচ্ছে করছে না।
-আচ্ছা। কি করছো?
-গান শুনছিলাম।
-বাংলা না ইংলিশ?কার?লিংকিন পার্ক না আর্টসেল?
-রবীন্দ্র সংগীত।
-আজকাল এ ও শুনছো নাকি?তোমার ভাষায় তো ম্যাড়ম্যাড়ে ছিলো।
-কিছু বলবে?
-গল্প করতে পারি একটু তোমার সাথে?বেশিক্ষণ নিবো না,এই ধরো মিনিট কুড়ি।
-না।
-“আমাদের গেছে যেদিন, একেবারেই কি গেছে?”
-আদিখ্যেতা করো না প্লিজ।মানাচ্ছে না।
-তোমার এগুলা আদিখ্যেতা লাগছে?এতকাল পরে এসে?
-লাগছে তাই বললাম।মিথ্যে তো বলছি না।
-আচ্ছা, বিদায়।ভালো থেকো।
-হুম, থাকবো।
-আমাদের শেষটা এমন কেনো হলো?
-জানি না।
-অন্যরকম হতে পারতো না?হ্যাপিলি এভার আফটার?
-হয়ত পারতো।তবে হয়নি।
-আচ্ছা ভালো থেকো।
-একবার বলেছো।
-যাই তাহলে।
-হুম।
-নীলা,আমাদের গল্পটা এমন না হলেও হয়ত হতো।আমরা চাইলেই হয়ত একসাথে থাকতে পারতাম।খুব কি কঠিন ছিলো?প্রশ্নটা আমায় খুব জ্বালাচ্ছে জানো।এমন তো না যে আমরা চাই নি।একসাথে বাঁচতে চেয়েছি বলেই তো মাথা নিচু করে তোমার হাতটুকু ধরেছিলাম। সেটি কি খুব ভুল ছিলো?খুব বেশি বড়?

মেসেজটি দেখে নীলা কোনো উত্তর দেয় নি।শুধু উঠে গিয়ে তার প্রিয় গানটি ছেড়ে বারান্দায় গিয়ে দাঁড়িয়েছিলো।দূর থেকে সে দেখছে তার কাছে মিনিট কুড়ি চাওয়া মানুষটা রাস্তার মোড়ের দোকানটা থেকে সস্তা সিগারেট কিনে জ্বালিয়েছে।চোখাচোখি হতে সে একটু হেসে মাথা নাড়ালো।নীলা চোখ ফিরিয়ে মুখ তুলে আকাশটা দেখছে।বিকেলের মায়ায় পাখিগুলো ক্লান্ত হয়ে ভেসে বেড়াচ্ছে আপনমনে।আকাশটা সত্যি খুব বিশাল,সেখানে বুঝি সবার জায়গা হয়।

হাবীবা ফারহানা

What’s your Reaction?
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

Leave a Reply