Be patient, even if every possibility seems closed.

অল্প কাল্পনিকতা

রাতের আধারে হাজারো তারার মেলা
সাদা রঙের আভা ছড়িয়ে পরীদলের ছুটে চলা
বইয়ের কোণে কোণে নিজের নাম সাজিয়ে
চিত্রকলায় এক আজব দুনিয়া রটিয়ে নেওয়া।
সময়কে নিজের সঙ্গী করে
পহরির বেশে অমূল্যতার পাহারা দেওয়া,
এক নিমিষেই আজানার পথে যাওয়ার ইচ্ছে
কখনো বা চাদের সাথে চোখাচোখি
আমাকে দেখে তার মুখে এই ফুটলো বিরাট এক হাসি!
বাবার হাত ধরে সাত দেশের ভ্রমণ
মায়ের আচলে নিজেকে লুকিয়ে রাখি
বোনটাকে নারাজ আঁখিতেই রাখি
ভাইগুলা তো বড্ড বাজে
আমি একাই রাজা হয়ে বাঁচি…
বৃত্তাকার এই গোলকে এমন কতোই না করি কারসাজি।
দ্রুত ধাবমান জীবনদশায় কতো কিছুই না পিছু ফেলে আসি।
বয়স বাড়ে, সময়ের চাকা ঘুরে
শৈশব পেরিয়ে কখন যেন দায়িত্বে পা রাখি,
নিজ জগতখানা সৃজনশীলতায় দেখি
বিন্দু সমান আমরা না কো
তবুও নিজেরে বিরাট করে রাখি।
কেউবা আবার তুচ্ছ হয়েই ওপারে পা রাখে।
কিন্তু এমন করি কয়জন?
ভালো তো সকলেই আমরা, খারাপই বা কয়জন
বিবেকবান আচরনে পশুচারণ করি।
না,আমরা সভ্য জাতি,
তাই অনুকরণ বাকীদের
অনুশোচনা আমাদের!
অনুতাপ যেন সঙ্গী মোদের!
জীবনটা কি এমনি ভেবে রাখি??
ছুটে চলার প্রতিযোগীতায় আনন্দটা কতই বা আপন করি?
থামা যাবে না,তবুও ঐ শিশু মনে ফেরার সময় কি হয় না?
মায়ের আচলে কি আর মুখ লুকানো যায় না?
বাবার হাতে হাত রাখা যায় না?
এক অনিবার্য সত্যে খুজে বেরিয়ে পড়ি
গড়তে হবে,আকাশ ছুতে হবে..
তবে এই ছোঁয়ার পথে নিজ মনটাকে কবেই যেন মেরে চলে আসি।
আমি বলি,রাখো এইসব একটু
তাকাও আবার আকাশ পানে
যেন আবার চাদের মুখে বিরাট হাসি ফুটে
এবার সময়টাকে থামিয়ে দাও
নিজের সময় দেওয়ার একটু সময় করেই নাও!!

কলমেঃশাহনাজ রহমান প্রমি

What’s your Reaction?
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

Leave A Comment